Header Ads

দুর্গা পূজা ২০১৭; মুক্তি পাওয়া ছবিগুলোর ইতিকথা (সমালোচক রিভিউ, দর্শক রিভিউ, স্ক্রিন দখল, বক্সঅফিস)!

দুর্গা পূজা ২০১৭; মুক্তি পাওয়া ছবিগুলোর ইতিকথা (সমালোচক রিভিউ, দর্শক রিভিউ, স্ক্রিন দখল, বক্সঅফিস)!
দুর্গা পূজায় মুক্তি পাওয়া ছবির ইতিকথা!

[টালিউড]


দুর্গা পূজা ২০১৭; মুক্তি পাওয়া ছবিগুলোর ইতিকথা (সমালোচক রিভিউ, দর্শক রিভিউ, স্ক্রিন দখল, বক্সঅফিস)!

টালিউড তথা সমগ্র বাংলা সিনেমার ইতিহাসে প্রথমবারের মত দুর্গা পূজায় ৭টি বাংলা সিনেমা মুক্তি পাই। এপাড় বাংলা ও ওপাড় বাংলা মিলে আগে কখনো কোন উৎসবে (পূজা, ঈদ, বড়দিন) সর্বোচ্চ ৬টা সিনেমা মুক্তি পেলেও একসাথে ৭টা ছবি মুক্তি পাই নি। সেই হিসেবে ২০১৭ সালের দুর্গা পূজা শুরুর আগেই টালিউড ইন্ডাট্রি রেকর্ড গড়ে ফেলল। কিন্তু ৭টা ছবি মুক্তি পেলেও দর্শকপ্রিয়তা, সমালোচক প্রিয়তা, হল ব্যবসায়িপ্রিয়তা ইত্যাদি ক্ষেত্রে সবকটি ছবিই সমান গুরুত্ব পাই নি। মূলত দুর্গা পূজা উপলক্ষে ৭টা ছবি ঘিরে প্রায় ২৫কোটি টাকার বিনোয়োগ লক্ষ্য করা গেলেও, বক্সঅফিসে হেসেছে ভাল ছবি গুলোই।

মুক্তির আগে থেকেই দুর্গা পূজার ছবি হিসেবে আলোচনায় ছিল ’ইয়েতি অভিযান’, ‘ককপিট’, ‘বলো দুগ্গা মাঈকী…’, ’ব্যোমকেশ ও অগ্নিবাণ’। বড় বাজেটের ছবি বলে ‘ককপিট’ ও ‘ইয়েতি অভিযান’ আলোচনায় প্রথম সারিতে থাকলেও, ’বলো দুগ্গা মাঈকী…’ সাধারণ দর্শকদের বিনোদন জুড়ে ছিল; সেই সাথে ‘ব্যোমকেশ ও অগ্নিবাণ’ বরাবরের মত গোয়েন্দাপ্রিয় দর্শকদের আবদ্ধ করে রেখেছিল। ট্রাম কার্ড হিসেবে ‘প্রজাপতি বিস্কুট’ ভিন্নধর্মী ধারা সৃষ্টি করে ভালই আগ্রহ সৃষ্টি করেছে; কিন্তু ‘চলচ্চিত্র সার্কাস’ ও ‘শ্রেষ্ঠ বাঙালি’ দুর্গা পূজায় ছবির সংখ্যা বৃদ্ধি, সেই সাথে নতুন রেকর্ড (এক সাথে ৭টি ছবি মুক্তির রেকর্ড) সৃষ্টিতে সহায়তা করা ভিন্ন, ব্যতিক্রম কিছু সৃষ্টি করতে ব্যর্থ হয়েছে বলা যায়।

দুর্গা পূজা ২০১৭ উপলক্ষে মুক্তি পাওয়া যে ছবিগুলো স্ক্রিন, রিভিউ ও বক্সঅফিস হিসাবে এগিয়ে ছিল সেগুলো নিয়ে নিচে আলোচনা করা হল  :

পূজার ছবির স্ক্রিন দখলকথা :

মুক্তি পাওয়া ছবিগুলোর মধ্যে হল মালিকরা সবচেয়ে বেশি হলে মুক্তি দিয়েছে ‘বলো দুগ্গা মাঈকী…’ ছবিটিকে! ১৬২ স্ক্রিন জুড়ে মুক্তি পাওয়া ‘বলো দুগ্গা মাঈকী…’ টালিউডের সবচেয়ে বড় ব্যানার এসভিএফ এর টাকায় নির্মিত । ছবিটি মুক্তির তৃতীয় সপ্তাহে এসেও সর্বোচ্চ হলের রেকর্ড ধরে রেখেছে। দ্বিতীয় স্থানেও এসভিএফ এর বিনিয়োগ রাজত্ব। তাদের ব্যানারে নির্মিত ‘ইয়েতি অভিযান’ ৮২ স্ক্রিনে মুক্তি পাই (উল্লেখ্য নেপালেও ছবিটি ৫০ স্ক্রিনে মুক্তি পাই)। দেবের টাকায় নির্মিত ‘ককপিট’ এর ভাগ্যে স্ক্রিন জুটে ৬৫টি আর এসকে-এর ব্যানারে নির্মিত ‘ব্যোমকেশ ও অগ্নিবাণ’ এর ভাগ্যে স্ক্রিন জুটে ৬১টি।

১. অঙ্কুশ ও নুসরাত জাহানের ’বলো দুগ্গা মাঈকী…’-এর স্ক্রিন সংখ্যা : ১৬২টি
২. প্রসেনজিতের ‘ইয়েতি অভিযান’- এর স্ক্রিন সংখ্যা : ৮২টি
৩. দেব-রুক্মিনী-কোয়েল মল্লিকেরর ‘ককপিট’-এর স্ক্রিন সংখ্যা : ৬৫টি
৪. যীশু সেনগুপ্তের ‘ব্যোমকেশ ও অগ্নিবাণ’ এর স্ক্রিন সংখ্যা : ৬১টি


পূজার ছবির সমালোচক রিভিউকথা :

মুক্তি পাওয়া ছবিগুলোর মধ্যে সমালোচকরা সবচেয়ে বেশি পছন্দ করেছে দেবের ‘ককপিট’ ছবিটিকে। বেশিরভাগ সমালোচক ‘ককপিট’ টালিউডকে নতুন উচ্চতায় নিয়ে গেছে বলে মনে করে। ভারতীয় সিনেমার ইতিহাসে দেব নতুন কিছু করে দেখাল ‘ককপিট’ এর মাধ্যমে, যা টালিউডের ছবি হিসেবে গর্বের বিষয় বলে মনে করে সমালোচকরা। ‘ককপিট’ নিয়ে টাইমস অব ইন্ডিয়া, আইএমডিবি, কলকাতার জনপ্রিয় বিনোদন প্রত্রিকার সম্পাদক প্রভৃতির সমালোচনায় ’ককপিট’ অন্য ছবির চেয়ে অনেক ব্যবধানে জয়ী। অন্যদিকে প্রসেনজিতের ‘ইয়েতি অভিযান’ শুরু থেকেই আলোচনায় থাকলেও অনেক সমালোচক ছবিটি নিয়ে পুরোপুরি সন্তুষ্ট হতে পারে নি। সমালোচকদের সন্তুষ্ট করার ক্ষেত্রে ‘ইয়েতি অভিযান’ এর চেয়ে ‘ব্যোমকেশ ও অগ্নিবাণ’ এবং ‘প্রজাপতি বিস্কুট’ ঢেড় এগিয়ে ছিল। ম্যাস এরিয়ার জন্য নির্মিত বলে ‘বলো দুগ্গা মাঈকী…’ বেশিরভাগ সমালোচক ছবিটি স্কিপ করেছে।

১. দেব-রুক্মিনী-কোয়েল মল্লিকেরর ‘ককপিট’-এর সমালোচক রিভিউ গড় : ৩.৮/৫
২. অপরাজিতা ও খেয়ালির ‘প্রজাপতি বিস্কুট এর সমালোচক রিভিউ গড় : ৩.৭/৫
৩. যীশু সেনগুপ্তের ‘ব্যোমকেশ ও অগ্নিবাণ’ এর সমালোচক রিভিউ গড় : ৩.৫/৫
৪. প্রসেনজিতের ‘ইয়েতি অভিযান’- এর সমালোচক রিভিউ গড় : ৩/৫
৫. অঙ্কুশ ও নুসরাত জাহানের ’বলো দুগ্গা মাঈকী…’-এর সমালোচক রিভিউ গড় : ২.৫/৫


পূজার ছবির দর্শক রিভিউকথা :

সমালোচকদের মত দর্শকরাও মুক্তি পাওয়া ছবিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি পছন্দ করেছে দেবের ‘ককপিট’ ছবিটিকে। মুক্তির প্রথম দিকে প্রসেনজিতের ’ইয়েতি অভিযান’ নিয়ে প্রবল আগ্রহ থাকলেও যতই দিন গড়িয়েছে, দর্শকরা ‘ককপিট’ এর দিকে ততই ঝুঁকে পরেছে। ফলে সামাজিক মাধ্যমগুলোতে দর্শকরা ‘ককপিট’ নিয়ে তাদের আগ্রহ/ভাল লাগার কথা শেয়ার করে অন্য দর্শকদের মনযোগ আকর্ষণ করছিল। ‘বলো দুগ্গা মাঈকী…’ প্রথম দিকে সিংগেল স্ক্রিনে এক চেটিয়া ব্যবসা করলেও, ‘ককপিট’ তাতে ভাগ বসিয়েছিল পরবর্তীতে। তবে সিংগেল স্ক্রিন স্বলতার কারণে ‘বলো দুগ্গা মাঈকী…’ এগিয়ে ছিল সাধারণ দর্শকদের কাছে। মাল্টিপ্লেক্স দর্শকদের কাছে ‘ককপিট’ এর পর ‘ইয়েতি অভিযান’ এর সাথে জোড় লড়াই করেছে ‘ব্যোমকেশ ও অগ্নিবাণ’।

১. দেব-রুক্মিনী-কোয়েল মল্লিকেরর ‘ককপিট’-এর দর্শক রিভিউ গড় : ৪.৫/৫
৩. যীশু সেনগুপ্তের ‘ব্যোমকেশ ও অগ্নিবাণ’ এর দর্শক রিভিউ গড় : ৪/৫
৪. প্রসেনজিতের ‘ইয়েতি অভিযান’- এর দর্শক রিভিউ গড় : ৩.৫/৫
৫. অঙ্কুশ ও নুসরাত জাহানের ’বলো দুগ্গা মাঈকী…’-এর রিভিউ গড় : ২.৫/৫


পূজার ছবির বক্সঅফিসকথা :

সবচেয়ে বেশি হলে মুক্তির পাওয়া সুবিধার্থে ‘বলো দুগ্গা মাঈকী…’ প্রথম দিকে সবচেয়ে বেশি ব্যবসা করা সুযোগ পেয়েছে। সেই সাথে বড় বাজেটের ছবি ‘ইয়েতি অভিযান’ রেকর্ড পরিমাণ ব্যবসা উদ্বোধন করেছে প্রথম দিনে। তবে হল স্বল্পতার কারণে সব চেয়ে বেশি ব্যয়ে নির্মিত ‘ককপিট’ প্রথম দিনে আশানুরূপ ব্যবসা করতে পারে নি। স্বল্প বাজেটে ‘ব্যোমকেশ ও অগ্নিবাণ’ বরাবরের মতই ভাল ব্যবসা শুরু করেছে। তবে চারিদিকে ’ককপিট’ এর দর্শকপ্রিয়তার কথা ছড়িয়ে পরলে মুক্তির তিন-চার দিনের মাথায় বক্সঅফিস দখলে নেয় দেব। বিশ্বব্যাপী বক্সঅফিস আয় হিসাব করলে এগিয়ে থাকবে ‘ইয়েতি অভিযান’।

১. দেব-রুক্মিনী-কোয়েল মল্লিকেরর ‘ককপিট’-এর বক্সঅফিস : ৬.১৫ কোটি/১৬ দিন
২. যীশু সেনগুপ্তের ‘ব্যোমকেশ ও অগ্নিবাণ’ এর বক্সঅফিস : ৫.০৩ কোটি/১৬ দিন
৩. অঙ্কুশ ও নুসরাত জাহানের ’বলো দুগ্গা মাঈকী…’-এর বক্সঅফিস : ৫.৬২ কোটি/১৬ দিন
৪. যীশু সেনগুপ্তের ‘ব্যোমকেশ ও অগ্নিবাণ’ এর বক্সঅফিস : ২.২২ কোটি/১৬ দিন

আরো পড়ুন :

আপ-কামিং টালিউড; কলকাতায় যে ছবিগুলো সামনে মুক্তি পাবে! 

সুপারস্টার প্রসেনজিতের ‘ইয়েতি অভিযান’ এর বাজেট, ট্রেইলর ও বক্সঅফিস এর ভিতরের রিপোর্ট! 

সুপারস্টার দেবের  ‘ককপিট’ এর বাজেট, মুক্তি তারিখ, অভিনয় শিল্পী ও বক্সঅফিস এর ভিতরের রিপোর্ট!

অঙ্কুশের ’বলো দুগ্গা মাঈকী’ এর বাজেট, মুক্তি তারিখ, অভিনয় শিল্পী ও বক্সঅফিস আয়!   

কোন মন্তব্য নেই

Blogger দ্বারা পরিচালিত.