Header Ads

‘ইন্সপেক্টর নটি কে’, ‘টোটাল দাদাগিরি’ ও ‘আসছে আবার শবর’-এর বক্সঅফিস লড়াইয়ের পাঁচটি ভিতরের খবর !

‘ইন্সপেক্টর নটি কে’, ‘টোটাল দাদাগিরি’ ও ‘আবার আসছে শবর’-এর বক্সঅফিস লড়াইয়ের পাঁচটি ভিতরের খবর !
বক্সঅফিস লড়াই!

[বিনোদন : টালিউড]


‘ইন্সপেক্টর নটি কে’, ‘টোটাল দাদাগিরি’ ও ‘আসছে আবার শবর’-এর বক্সঅফিস লড়াইয়ের পাঁচটি ভিতরের খবর।


কাল কলকাতার বক্সঅফিসে মুক্তি পাচ্ছে তিনটি ছবি। ‘আমাজন অভিযান’ এর রেশ কাটতে না কাটতেই স্বরসতী পূজাকে সামনে রেখে আবারো গরম হয়ে উঠেছে টালিউড ইন্ডাস্ট্রি। বড় বাজেটের দুইটি ছবির সাথে শক্তিশালী কন্সেপ্টের একটি ছবি নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পরেছে হলগুলো। সুপারস্টার জিৎ-এর ‘ইন্সপেক্টর নটি কে’র সাথে লড়াইয়ে থাকছে ইয়ং স্টার যশ দাশগুপ্তের ’টোটাল দাদাগিরি’ ও শক্তিশালী অভিনেতা শাশ্বত চ্যাটার্জীর ‘আসছে আবার শবর’। বক্সঅফিসে কে জয়ী হবে, সে খবর নেওয়ার আগে দেখা যাক কোন ছবি এগিয়ে আছে।

‘ইন্সপেক্টর নটি কে’, ‘টোটাল দাদাগিরি’ ও ‘আসছে আবার শবর’ এর মধ্যে পাঁচটি কারণে যে ছবিটি এগিয়ে থাকছে।

১. স্টার পাওয়ার :

স্টার পাওয়ারের দিক থেকে ‘ইন্সপেক্টর নটি কে’ যোজন যোজন এগিয়ে। কেননা জনপ্রিয়তার বিচারের জিৎ যেখানে সুপারস্টার, সেখানে যশের এখনো অনেক পথ বাকি। অন্যদিকে শাশ্বত চ্যাটার্জী জিৎ-যশের মত নায়ক না হলেও, ’আসছে আবার শবর’ জন্য সে পারফেক্ট একজন অভিনেতা। তবে বক্সঅফিসে প্রথম দিনটিতে স্টার পাওয়ার কাজ করলেও, ছবিকে ব্যবসায়িক সাফল্য সবসময় এনে দিতে পারে না। তবে স্টার পাওয়ারের বিবেচনা ‘ইন্সপেক্টর নটি কে’ এগিয়ে থাকছে।


২. সিমেনার ধরণ :

স্বরসতী পূজাকে সামনে রেখে যে ধাঁচের ছবির প্রতি দর্শকদের সবচেয়ে আগ্রহ বেশি থাকে, ‘ইন্সপেক্টর নটি কে’ ও ‘টোটাল দাদাগিরি’ সেই ধাঁচেরই ছবি। কমেডি-রোমান্স-অ্যাকশানের কারণে এ দুইটি ছবির প্রতি দর্শকদের আগ্রহ থাকলেও ‘টোটাল দাদাগিরি’র চাইতে ‘ইন্সপেক্টর নটি কে’ সবচেয়ে বেশি এগিয়ে থাকছে। তবে ‘আসছে আবার শবর’ তাদেরকেই বেশি টানবে, যারা সাসপেন্স ভালবাসে।

৩. সংগীতের জাদু :

সংগীতের দিক থেকে ‘আসছে আবার শবর’ শূণ্যের কৌটায়। শ্রুতি মধুর সংগীতের পাশাপাশি পার্টি সং-এ ‘ইন্সপেক্টর নটি কে’ ও ‘টোটাল দাদাগিরি’র মধ্যে জোর লড়াই হবে। বেশ কিছু ক্ষেত্রে ’টোটাল দাদাগিরি’ এগিয়েও থাকছে।

৪. বাজেট বরাদ্ধ:

যৌথ প্রযোজনার ছবি হিসেবে ‘ইন্সপেক্টর নটি কে’ অনেক বেশি বাজেটের ছবি, সেই সাথে ঝুঁকিটাও কম। কেননা না ছবিটি দুই বাংলায় ব্যবসা করার সুযোগ পাচ্ছে। অন্যদিকে ‘টোটাল দাদাগিরি’র বাজেট লিমিটেড হলেও তা মোটামুটি খুব একটা ফেলবার নয়। সেই ক্ষেত্রে ‘আসছে আবার শবর’ একদম কম বাজেটের ছবি, তবে ঝুঁকি অনেক বেশি।


৫. হল দখল :

হল দখলে এগিয়ে থাকছে ‘ইন্সপেক্টর নটি কে’! জিতের জনপ্রিয়তার উপর ভিত্তি করে হল মালিকরা অনায়াসেই ছবিটি প্রদর্শন করছে। ফলে প্রায় ১৩০-১৫০টার মত হল পেয়েছে ছবিটি। অন্যদিকে বাংলার সবচেয়ে বড় ব্যানার এসফিএফ এন্টারটেইনম্যান্টের কল্যাণে ‘টোটাল দাদাগিরি’ ও ‘আসছে আবার শবর’ও খুব একটা পিছিয়ে নেই। ‘টোটাল দাদাগিরি’ ১০০ শ খানেক হলে এবং ’আসছে আবার শবর ৫০-৭০টার মত হলে মুক্তি পাচ্ছে।

ইন্সপেক্টর নটি কে’, ‘টোটাল দাদাগিরি’ ও ‘আসছে আবার শবর’ এর মধ্যে পাঁচটি কারণে যে ছবিই এগিয়ে থাকুক না কেন, বক্সঅফিসে সফল হতে হলেও অবশ্যই দর্শকদের  প্রোপার বিনোদন দেওয়ার মত যোগ্যতা থাকতে হবে। দর্শকদের মন জয় করতে পারলেই, ছবি সুপারহিট।

[লক্ষ্য করুন : ‘ইন্সপেক্টর নটি কে’, ‘টোটাল দাদাগিরি’ ও ‘আসছে আবার শবর’ ছবির রিভিউ ও বক্সঅফিস রিপোর্ট রঙধারায় প্রকাশ করা হবে।]

আরোপড়ুন :



[বি.দ্র: রঙধার‘ প্রকাশিক পোস্টগুলো হুবুহু, আংশিক কিংবা কিছুটা পরিমার্জিত হয়ে বেশ কিছু সাইটে অবিরত প্রকাশিত হচ্ছে। ফলে রঙধারা সর্বোচ্চ সঠিক সংবাদ প্রকাশের যথাযথ আগ্রহ হারিয়ে ফেলছে; কেননা এই সাইটটি স্বেচ্ছাশ্রমে পরিচালিত! আপনার যদি রঙধার‘ পোস্ট ভাল লাগে, তবে বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করে আমাদের যাত্রাকে বেগবান করুন। আর ভাল না লাগলে আমাদের নিচে মন্তব্য কলামে মন্তব্য করুন। 
চাইলে রঙধার‘ আপনিও লিখতে পারেন। লিখতে আমাদের মেইল বক্সে মেইল করুন!


আপনার সহযোগিতার হাত ধরেই রঙধারা’ এগিয়ে যাক সর্বোচ্চ সঠিক তথ্যের সন্ধানে…]
Blogger দ্বারা পরিচালিত.